Views: 40

পড়াশোনা:

সকালের রুটিন প্রায় সব বাড়িতে একই রকম ,বাবা ব্যস্ত থাকেন খবরের কাগজ পড়তে পড়তে চা খাওয়ায় ,তারপর দাড়ি কাটা,স্নান সেরে,খেয়ে দেয়ে অফিস যাওয়া।

মায়েদের কাজ থাকে চা করা জলখাবার করা, সকলকে খেতে দেওয়া, আবার ছোট ছেলে মেয়েরা পড়তে বসেছে কিনা দেখা।

সেইরকমই এক বাড়িতে বাবা,দাদা কাগজ পড়তে পড়তে চা খাচ্ছে , মা রান্নায় ব্যস্ত। বাড়ির ছোট ছেলে বাবুসোনা; মাস্টার মশাই এর  দেওয়া পড়া মুখস্ত করতে বসেছে।

বাবুসোনা – “I am good boy…….I am good boy”

বাবা বললো -“এই মানে টা বল।……….. আমি ভালো ছেলে। “

বাবুসোনা – “I am good boy – বাবা ভালো ছেলে।……. I am good boy – বাবা ভালো ছেলে। “

দাদা এসে বললো – “এই ঠিক করে বল।  I am good boy মানে হচ্ছে –  আমি হই ভালো ছেলে।”

বাবুসোনা – “I am good boy –  দাদা হয় ভালো ছেলে।….. I am good boy –  দাদা হয় ভালো ছেলে। “

এইবার দিদি চিৎকার করে বলে,

-“দেখেছো মা ভাই কথা শুনছেনা, যত বলছে সবাই, বল আমি ভালো ছেলে তত ও বাবা ভালো দাদা ভালো এই সব বলছে।”

 ভাইকে উদ্দেশ্য করে দিদি বলে,

-“আরে গাধা,I am good boy মানে হচ্ছে –  আমি ভালো ছেলে। “

বাবুসোনা একটু চুপ করে থেকে বলে,

-“তুই কি ছেলে যে তুই ভালো ছেলে হবি ?”

“দেখেছো মা ভাই কি সব বলছে।” দিদি চেঁচিয়ে উঠে বলে।

মা তাড়াতাড়ি এসে বাবুসোনার কাছে বসে বলেন,

-“I am good boy মানে হচ্ছে –   তুমি ভালো ছেলে।”

“আমি ভালো ছেলে।” হাসতে হাসতে বাবুসোনা বলে,

-“হ্যাঁ ঠিক বলেছ।”

বাবুসোনা মায়ের কাছে সরে এসে বলে,

-” মা আমি যখন জন্মালাম তখন তুমি কোথায় ছিলে?”

মা হেসে বলে,

– ” হাসপাতালে।”

“তাহলে তুমি বাড়িতে এসে আমাকে দেখে অবাক হয়ে গিয়েছিলে?”

“এখনি মাস্টার মশাই আসবেন তুমি অন্য বই পর ” বলে মা চলে গেলেন।

বাবুসোনা অন্য একটি খাতা খুলে পড়তে থাকে। …………

” কপাল ভিজিয়া যায় নয়নের জলে

  কপাল ভিজিয়া যায় নয়নের জলে

  কপাল ভিজিয়া যায় নয়নের জলে “

বাবা শুনে বলে,

-“এই বাবু, ভুল পড়ছিস কেন? ঠিক করে পর,দেখ ঠিক করে কি লেখা আছে।”

বাবুসোনা -“না না ঠিকপড়ছি , কপাল ভিজিয়া যায় নয়ন এর জলে। “

বাবা রেগে বলে,

-“মাস্টারমশাই এর কান্ডজ্ঞান নেই। ভুল লিখে দিয়ে চলেগেছেন। “

দাদা এসে বলে,

-“আরে বোকা কপাল ওপরে থাকে আর নয়ন মানে চোখ নীচে থাকে। “

বাবুসোনা-” না না মাস্টারমশাই যা লিখে দিয়েছেন তাই পড়ব। ” কপাল ভিজিয়া যায় নয়ন এর জলে “বলে বাবু সোনা পড়া করে। 

এমন সময় মাস্টারমশাই পড়াতে আসেন।

বাবা রেগে বলেন,

-” কি ভুলভাল  লেখা পড়তে দেন যার মানে থাকে না। “

মাস্টারমশাই অবাক হয়ে বলেন,

-” অরে মশাই চার লাইন এর একটা ছড়া পড়তে দিয়েছি তার দু লাইন পড়েছে, পরের দু লাইন আছে সেটা পড়ুন। “

পরের লাইন দুটো হলো ” পা দুটো বাধা আছে আমরা গাছের ডালে। অর্থাৎ কপাল ভিজিয়া যাই নয়ন এর জলে। পা দুটো বাধা আছে আমরা গাছের ডালে। হল। “

-“হুঁ “-বলে বাবা চলে যায়। 

বাবা অফিসে বেরিয়ে যায় তাড়াতাড়ি করে। অনেক দেরি হয়ে গেছে। দৌড়ে দৌড়ে গিয়ে বাস ধরেছে।

-“যা: গেলো জ্যামে আটকে। কি হবে? অফিসে তো লেট হয়ে যাবে।”

সেই সময় পাশের একজন যাত্রী বললেন,

-” কি দাদা বসুন জায়গাতো খালি। জ্যামে আটকে গেছে বাস তাই এবার ভিড় পাতলা হয়ে যাবে। অনেকেই নেমে যাবে। “

বাবু সোনার বাবা বসে পাশের ভদ্রলোককে ধন্যবাদ জানায়। এবার ওই পাশের ভদ্রলোক আলাপ জমায়। প্রশ্ন করে,

-” না না ধন্যবাদ এর দারকার নেই। তা দাদা যাওয়া হচ্ছে কোথায় ?”

-“যাচ্ছি ধর্মতলা। আপনি?” বাবা বলে।

-আমি যাচ্ছি কেওড়াতালা। “

যাত্রী বলে -“দাদার চাকরি কোথায় ?”

বাবার উত্তর -” টাটায় , আপনার ?”

যাত্রী -” বাটায় ?তা দাদা নামটা কি ?”

বাবার উত্তর -” বনবিহারী কান্তি চরণ ভাদুড়ী। আপনার ?”

যাত্রী -” আজ্ঞে বাঁশবিহারী কান্তি চরণ বেঁকারী। তা দাদার কয় ছেলে? নাম কি তাদের ?”

বাবার উত্তর -” আমার তিন ছেলে ‘ নীলাম্বর দিগম্বর পীতাম্বর , আপনার ?”

যাত্রী -” আমারও তিন ছেলে, অক্টোবর নভেম্বর ডিসেম্বর। আপনার? কয় মেয়ে ,নাম কি তাদের ?

বাবার উত্তর -“আমার তিন মেয়ে। মালা বেলা আর পলা। আপনার ? “

যাত্রী -” আমারও তিন মেয়ে মুসুর মুগ ছোলা। “

বাবাতো অফিস গেল।

এবার বাড়িতে দেখি। মাস্টারমশাই ছাত্রের ব্যাপার। কি প্রশ্ন উত্তর হচ্ছে।

মাস্টারমশাই বলেন,- “আজ তোমায় কয়েকটা প্রশ্ন করবো? পারবে বলতে?”

বাবুসোনা লম্বা ঘাড় নেড়ে বলে ,-” হ্যাঁ স্যার। “

মাস্টারমশাই -” আচ্ছা বাবুসোনা সামনেই তো পরীক্ষা কেমন পোড়াশোনা হচ্ছে ?”

মাথা চুলকে বাবুসোনা বলে – ” প্রশ্নতো সব সোজাই স্যার।  ও নিয়ে আমার কোনো চিন্তা নেই। আমার সমস্যা কেবল উত্তর নিয়ে। “

মাস্টারমশাই -” পড়লেই সব ঠিক হয়ে যাবে। আচ্ছা দস্তানা কাকে বলে ? বল”

বাবুসোনা-” দশ জনের আস্তানা কে বলে।”

মাস্টারমশাই -” শক্তির পুংলিঙ্গ কি হবে ?”

বাবুসোনা-” উঁ উঁ  নিশ্চই শুক্তো।  তাই না স্যার। ” 

মাস্টারমশাই -“আচ্ছা বলো দেখি রামায়ণে একটা পাখির নাম জটায়ু ছিল কেন ?”

বাবুসোনা -“নিশ্চই তার আয়ু জট পাকানো ছিল তাই।” 

মাস্টারমশাই -“না না সব ভুল। এবার বলো পশ্চিমবঙ্গের রাজধানীর নাম কি ?”

বাবুসোনা -“কি করে বলবো স্যার ?”

মাস্টারমশাই -” কেন কেন ?”

বাবুসোনা -“আমি তো কলকাতায় থাকি। “

মাস্টারমশাই -” না কিছু হচ্ছে না ঠিক। আচ্ছা বলো কাগজি বানান কি ?”

বাবুসোনা -” গিজজি গিজিং ই। “

মাস্টারমশাই -” সে আবার কি ? আচ্ছা আম গাছ থেকে, আম উপরে না গিয়ে নিচে পরে কেন ?”

বাবুসোনা -” ওপরে খাবার লোক নেই তাই নিচে পরে। নিচে খাবার অনেক লোক আছে। “

মাস্টারমশাই -” বলতে পারো যে  সব ছেলে রা সত্য কথা বলে না তারা বড় হয়ে কি হয় ?”

বাবুসোনা -”  মন্ত্রী হয়। এতো সবাই জানে আপনি জানেন না স্যার ?”

মাস্টারমশাই -” পিঁপড়ে আমাদের কি উপকার করে ?”

বাবুসোনা -” পিঁপড়ে জানিয়ে দেয় কোথায় মিষ্টির ভাঁড় লুকোতে আছে। “

মাস্টারমশাই -“না তোমার দ্বারা কিছুই হবে না, আমি আর কাল থেকেন আসবো না জানিয়ে দিও তোমার বাবাকে। “

বাবুসোনা -” আচ্ছা স্যার বাবা জানেন আপনি আর আসবেন না। এই আপনাকে নিয়ে পাঁচজন হলো। “

কিছু দিন পর বাবুসোনার পরীক্ষা হয়ে গেছে। খাতা দেখানো হয়েছে এমন একদিন,

বাবা জিজ্ঞাসা করলো -” হ্যাঁ রে নম্বর কেমন হল ?”

বাবুসোনা -” কেবল একটা বিষয় ভালো হয়নি। “

বাবা-“বা: বাকিগুলো সব ঠিক হয়েছে ?”

বাবুসোনা -“না। বাকিগুলো তো লিখতেই পারিনি। “

বাবা-” অঙ্ক! অঙ্ক পরীক্ষা দিয়েছিলি তো। তা কত পেয়েছিস ?”

বাবুসোনা -” শম্ভুর থেকে পাঁচ নম্বর কম। “

বাবা-” শম্ভু কত পেয়েছে ?”

বাবুসোনা -” পাঁচ পেয়েছে। “

Audio Story Starts From Here:

Story InfoName
WriterKaberi Ghosh
NarratorOlivia Das
Intro & EndingPriyanka Dutta
CharactersName
BabusonaSohom Sadhukhan (Child Artist)
MastermosaiSouradip Roy
DidiPriyanka Dutta
DadaSoumik Banerjee
MaOlivia Das
BabaDebanshu Ghosh
Bus JatriJoydeep Lahiri

Find us on Facebook – click here

আরো পড়ুন

What’s your Reaction?
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0

About Post Author

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *